1 1 3000 1 300 120 30 https://www.techascentbd.com 1024
site-mobile-logo
site-logo

টাইপোগ্রাফির বিভিন্ন উপাদান

টাইপোগ্রাফির পরিধি বর্তমানে ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করেছে। আপনি এখন পোস্টার, ব্রোশিওর, লোগো, ওয়েবসাইট বা যে কোনও কিছুতে ছোট বা বড় আকারের পাঠ্য দেখতে পান, এগুলি টাইপোগ্রাফির সাথে জড়িত। আজকের প্রতিযোগিতামূলক ব্যবসায়ের পরিবেশে ব্র্যান্ডগুলিকে তাদের স্বতন্ত্র পরিচয় তৈরি করতে হয়। কোন […]

টাইপোগ্রাফির পরিধি বর্তমানে ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করেছে। আপনি এখন পোস্টার, ব্রোশিওর, লোগো, ওয়েবসাইট বা যে কোনও কিছুতে ছোট বা বড় আকারের পাঠ্য দেখতে পান, এগুলি টাইপোগ্রাফির সাথে জড়িত। আজকের প্রতিযোগিতামূলক ব্যবসায়ের পরিবেশে ব্র্যান্ডগুলিকে তাদের স্বতন্ত্র পরিচয় তৈরি করতে হয়। কোন ব্র্যান্ড তাদের বার্তা পৌঁছানর জন্য তাদের লক্ষ্য থাকে গ্রাহকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার। এর জন্যেই, গ্রাফিক ডিজাইনাররা পাঠ্যকে কার্যকর প্রভাবশালীতে পরিণত করার জন্য শক্তিশালী সরঞ্জাম হিসাবে টাইপোগ্রাফি ব্যবহার করেন। পরিণামে এটি কোনও ব্র্যান্ডের স্বীকৃতি দেয়। টাইপোগ্রাফির দক্ষ ব্যবহার ডিজাইনের পাঠ্যে অনন্য আকার দেয় এবং বর্ণগুলি এমনভাবে রাখে যে এটি দর্শকদের সৃতিতে স্মরণীয় হয়ে থাকে। সুতরাং, আমরা বলতে পারি যে টাইপোগ্রাফির কৌশলগত ব্যবহার একটি ব্র্যান্ড তৈরির মূল বিষয়। ডিজাইনারদের পাশাপাশি শিল্পীরাও বিভিন্ন উপায়ে অক্ষর ব্যবহার করে মজাদার চিত্র তৈরি করতে টাইপোগ্রাফি শিল্পের সহায়তা নেয়।

টাইপোগ্রাফির সাথে ব্র্যান্ডের ভিজ্যুয়াল পরিচয় ডিজাইন করার আগে এর বিভিন্ন দিক জেনে রাখা ভালো।

টাইপোগ্রাফি কি? প্রাথমিকভাবে বলতে গেলে, টাইপোগ্রাফি হলো সেই শিল্প যা ফন্ট, আকার এবং ব্যবধানের বিভিন্ন সংমিশ্রণে একটি টাইপফেস সাজানোর সাথে জড়িত কিছু। এইভাবে, ওয়েবসাইট ডিজাইন, ব্রোশিওর ডিজাইন, প্রিন্ট ডিজাইন, বই এবং কম্পিউটার গ্রাফিক্স ইত্যাদি সহ বিস্তৃত নকশাগুলির প্রভাব তৈরির জন্য টাইপোগ্রাফির ব্যবহার করা হয়। গ্রাফিক ডিজাইনাররা ডিজাইনের মধ্যে পাঠ্য সামঞ্জস্য করতে টাইপোগ্রাফি ব্যবহার করেন। ডিজাইনাররা পাঠ্যটি পাঠযোগ্য ও বোধগম্য করার জন্য কৌশলগতভাবে টাইপফেসগুলি ব্যবহার করেন। টাইপোগ্রাফি আইডিয়া সহ এই জাতীয় ডিজাইনগুলির কারণে, একটি ব্র্যান্ড কার্যকরভাবে তার দর্শকদের সাথে যোগাযোগ করতে পারে। তারা ফন্ট, আকার, বডি টেক্সট, ফাকা স্থান, স্থান নির্ধারণ এবং টাইপফেস ব্যবহারের অনেকগুলি বিষয় বিবেচনা করে ন্যায়বিচারমূলক সিদ্ধান্ত নেয়।

টাইপোগ্রাফির বিভিন্ন উপাদান

টাইপফেসগুলি সাজানোর উপায় আর আগের মতো নেই। নতুন প্রযুক্তি এবং ডিজাইনিংয়ের উদ্ভবের সাথে সাথে ডিজাইনার এবং উপাদানগুলি অনেক শর্তাদি ব্যবহার করে যা তাদের সৃজনশীলতাকে আরও সুনিপুণভাবে ফুটিয়ে তুলতে সাহায্য করে। টাইপোগ্রাফির সাধারণ কিছু উপাদান হলোঃ

১। টাইপফেস এবং ফন্ট ( Typefaces and Fonts )

প্রায়শই, ফন্ট এবং টাইপফেস পদ দুইটির মধ্যে গোলমাল পাকিয়ে ফেলে অনেকেই। প্রযুক্তিগতভাবে, একটি টাইপফেসে বিভিন্ন ওজন এবং আকারের বিভিন্ন চরিত্র থাকে। টাইপফেসটি আরিয়াল এবং হেলভেটিকার মতো পাঠ্য শৈলী তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। একটি টাইপফেস একাধিক ফন্টের একটি পরিবার হতে পারে। একটি ফন্ট টাইপফেসের ওজন, প্রস্থ এবং শৈলী বোঝায়। এটি পাঠ্য অক্ষরের গ্রাফিক উপস্থাপনা। ফন্ট একটি টাইপফেসের প্রস্থ, উচ্চতা এবং এর স্টাইল সম্পর্কে উল্লেখ করে। সমস্ত টাইপফেসে বিভিন্ন ফন্টের আকার রয়েছে। সুতরাং, গ্রাফিক ডিজাইনারগণ প্রতিটি স্বতন্ত্র চরিত্রকে এক্স-হাইট হিসাবে চিহ্নিত করেন। ডিজাইনাররা যখন ফন্টগুলি একসাথে জুড়তে চান, তারা সাধারণত একটি টাইপফাইস বাছাই করেন যা একই রকম এক্স-হাইটযুক্ত থাকে। টাইপফেস পরিমাপ করতে ডিজাইনাররা পয়েন্ট সিস্টেম ব্যবহার করেন। একটি বিন্দু এক ইঞ্চির ১/৭২ এর সমান এবং ১২ পয়েন্ট একটি পিকা এর সমান।

২। নেতৃস্থানীয় ( Leading ) এটি শব্দের প্রতিটি রেখার মধ্যকার উল্লম্ব স্থান।

৩। শীর্ষস্থানীয় মান ( Leading Value ) পাঠ্যের দুটি লাইনের মধ্যবর্তী দূরত্বের মান। অনেক ক্ষেত্রে এটি ফন্টের আকারের চেয়ে বেশি হতে পারে।

৪। ট্র্যাকিং ( Tracking ) লেটার স্পেসিং হিসাবে পরিচিত, ট্র্যাকিং হলো পাঠ্য অক্ষরের মাঝের দূরত্ব।

৫। কার্নিং ( Kerning ) কার্নিং হলো অক্ষর এবং অক্ষরের মধ্যে থাকা স্থান।

৬। লাইন দৈর্ঘ্য ( Line Length ) রেখার দৈর্ঘ্য হলো পাঠ্যের মান দৈর্ঘ্য।

৭। হায়ারার্কি ( Hierarchy ) হায়ারার্কি পাঠকের গুরুত্ব অনুসারে শিরোনাম, সাবহেডিং এবং বডির ধরণগুলি লক্ষ্য করার জন্য পাঠককে গাইড করার বিষয়ে।

৮। আকার ( Size) আকার হায়ারাকির মান নির্ধারণ করে এবং এটি ব্যবধান, মাত্রা এবং রঙ ব্যবহারের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়।

৯। রঙ ( Color ) পাঠ্যের রঙ একটি পাঠ্যকে আরও মার্জিতভাবে ফুটিয়ে তুলতে সহায়তা করে। এটি একটি ব্র্যান্ড বার্তার স্বর জানায়। ডিজাইনার রঙের তিনটি উপাদানকে ভারসাম্য দেয় – মান, হিউ এবং স্যাচুরেশন।

১০। প্রান্তিককরণ ( Alignment ) পাঠ্যকে সমান আকার, স্থান এবং প্রতিটি উপাদানের মধ্যে সঠিক দূরত্ব নিশ্চিত করে একত্র করার জন্য প্রান্তিককরণ একটি গুরুত্বপূর্ণ টাইপোগ্রাফি উপাদান।

১১। বৈপরীত্য ( Contrast ) ডিজাইনারদের একটি ধারণা বা বার্তা হাইলাইট করতে সহায়তা করে কনট্রাস্ট, এটি আরও একটি মূল টাইপোগ্রাফি উপাদান। এটি পাঠ্যটিকে অর্থবহ, মনোযোগ আকর্ষণ এবং আকর্ষণীয় করে তোলে।

Ashikul Islam

Hello This is Ashikul Islam. I'm a civil engineer but it's not my profession. Amazingly I'm a Graphic Designer . I'm working in this profession for 5 long years and earning my bread and butter from this by freelancing. Yes designing is in my blood and I love create something new with my imagination. You know something, Do what you love Love what you do. Stay strong stay Blessed. Ashikul Islam Not a Civil Engineer Proudly a Graphic Designer.

Previous Post
Next Post
0 Comments
Leave a Reply